বাংলাদেশে জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্ম সমূহ

43
বাংলাদেশে জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া

বাংলাদেশে সোশ্যাল মিডিয়ার জনপ্রিয়তা এখন আকাশ ছোঁয়া! ২০১৯ সালের শেষ দিকের পরিসংখ্যান মতে, বাংলাদেশে এখন ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ১০ কোটির কাছাকাছি। যার মাঝে সাড়ে ৩ কোটির বেশি ব্যবহারকারীই কোন না কোন সোশ্যাল মিডিয়ার সাথে যুক্ত। অনলাইন দুনিয়ায় এই মুহূর্তে ছোট বড় কয়েক হাজার সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্ম পাওয়া যাবে। যদিও সবগুলো সমানভাবে জনপ্রিয় নয়। কোনটি হয়ত সারাবিশ্ব জুড়েই ব্যবহৃত হচ্ছে। আবার কোনটি হয়ত নির্দিষ্ট কোন দেশের মাঝেই সীমাবদ্ধ।

জানতে চান, বাংলাদেশে বর্তমানে কোন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো জনপ্রিয়তার শীর্ষে? ভার্চুয়াল ভুবনের আজকের পোস্টে থাকছে, বাংলাদেশে জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্ম সমূহের একটি তালিকা।

#১ ফেসবুক

শুধু বাংলাদেশ নয়, নিঃসন্দেহে ফেসবুক সারা বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্ম। ইতিমধ্যে জানেন, বাংলাদেশে সাড়ে ৩ কোটির বেশি ইন্টারনেট ব্যবহারকারী সোশ্যাল মিডিয়ার সাথে যুক্ত। যার ৯৭ শতাংশই ব্যবহার করেন ফেসবুক! NapoleoCat নামের একটি ওয়েবসাইটের প্রকাশিত পরিসংখ্যান রিপোর্টে দেখা যায়, ২০১৯ সালের নভেম্বর মাসে বাংলাদেশে ফেসবুক ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৩ কোটি ৫৮ লাখ ছাড়িয়েছে। বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো আমাদের দেশেও ফেসবুকের আধিপত্য বেড়েই চলেছে। বেশিরভাগ ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর দৈনন্দিন জীবনের অবিচ্ছেদ্য এক অংশ হয়ে উঠেছে এই ফেসবুক। উল্লেখ্য যে, বর্তমানে ফেসবুকের মোট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ২.৪৫ বিলিয়ন।

#২ ইউটিউব

অনলাইনে ভিডিও শেয়ারিং প্লাটফর্ম হিসেবে সবচেয়ে জনপ্রিয় হল ইউটিউব। বাংলাদেশে এর জনপ্রিয়তার দিক থেকে বলতে হয়, দেশের মোট সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারীর ১ দশমিক ১৩ শতাংশ ইউটিউবের সাথে যুক্ত। ব্যবহারকারী দিক থেকে বাংলাদেশে ২য় অবস্থানে আছে এই সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্ম। অনলাইনে ভিডিও আমরা কম-বেশি সবাই দেখে থাকি। আর ভিডিও দেখার সাইট মানেই ইউটিউব! তাই বাংলাদেশে এর জনপ্রিয়তাও চোখে পড়ার মতো। তাছাড়া, ভিডিও কন্টেন্ট বানিয়ে আয় করার সুযোগ থাকায় এর ব্যবহার সম্প্রতি সময়ে চোখে পড়ার মতো। বিশ্বব্যাপী ইউটিউবের মোট ব্যবহারকারীর সংখ্যা প্রায় ১ দশমিক ৮ বিলিয়ন।

#৩ ইন্সটাগ্রাম

বাংলাদেশ বেশ জনপ্রিয় একটি সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্ম হল ইন্সটাগ্রাম। ফটো শেয়ারিং -এর জনপ্রিয় প্লাটফর্মটি ফেসবুকেরই মালিকানাধীন। ২০১২ সালের দিকে ইন্সটাগ্রামের জনপ্রিয়তা এতোটাই বেশি বেড়ে যাচ্ছিলো। যার ফলশ্রুতিতে, ১ বিলিয়ন ডলারে ইন্সটাগ্রামকে কিনে নেয় ফেসবুক। এখনও সমান জনপ্রিয় হয়েই আছে ইন্সটাগ্রাম। ১০০ মিলিয়নের বেশি মানুষ ব্যবহার করে এই সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্মটি। NapoleoCat -এর পরিসংখ্যান মতে, বাংলাদেশে ইন্সটাগ্রাম ব্যবহারকারীর সংখ্যা ২০ লাখের মতো।

#৪ লিংকড ইন

প্রফেশনালদের জন্য সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং প্লাটফর্ম হিসেবে পরিচিত লিংকড ইন। যা প্রায় ২৬০ মিলিয়ন প্রফেশনাল ব্যবহার করে। বাংলাদেশে এর ব্যবহারকারীর সংখ্যা ২৯ লাখ ছাড়িয়েছে। পেশাজীবীদের জন্য বিশেষভাবে তৈরি এই সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে অন্যান্যদের সাথে যুক্ত হওয়ার পাশাপাশি পাওয়া যায় চাকরির খোঁজও। বর্তমানে দেশের কর্পোরেট চাকরিগুলোতে আবেদন এবং প্রার্থী বাছাইয়ে লিংকড ইন প্রোফাইল বেশ গুরুত্ব পাচ্ছে। তাই, তরুণদের মাঝে এটি ব্যবহারের প্রবনতাও দিন দিন বাড়ছে।

#৫ টুইটার

বাংলাদেশে সোশ্যাল মিডিয়ার জনপ্রিয়তার দিক থেকে ৫ নম্বর অবস্থানে আছে টুইটার। আমাদের দেশে বর্তমানে টুইটার ব্যবহারকারীর সংখ্যা ১৮ লাখের বেশি। যা দেশের মোট সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারীর ০.৫১ শতাংশ। আমাদের দেশের প্রেক্ষাপটে, ফেসবুক-ইউটিউব ছাড়া অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্মগুলোতে ব্যবহারকারীদের পদচারনা তুলনামূলক কম। তাই, দেশের সাড়ে ৩ কোটি মানুষ ফেসবুক ব্যবহার করলেও ‘টুইটার’ ব্যবহার করছে মাত্র ১৮ লাখ মানুষ। তবে গোটা বিশ্ব জুড়ে টুইটারের ব্যবহার করে ৩২১ মিলিয়ন মানুষ। উল্লেখ্য যে, টুইটার মাইক্রো ব্লগিং সাইট হিসেবে পরিচিত।

#৬ পিন্টারেস্ট

ভিজ্যুয়াল কন্টেন্ট শেয়ারিং প্লাটফর্ম পিন্টারেস্টও জনপ্রিয় বাংলাদেশে। দেশের ০.৪৯ শতাংশ সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারী এই প্লাটফর্মটি ব্যবহার করেন। যদিও এই সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্মটির সাথে বাংলাদেশী অধিকাংশ সোশ্যাল মিডিয়া ইউজার পরিচিত না। তবে ডিজিটাল মার্কেটারদের মাঝে এটি বেশ জনপ্রিয়। বাংলাদেশে পিন্টারেস্ট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ১৭ লাখের মতো। আর তাদের মোট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৩০০ মিলিয়নের বেশি।

#৭ অ্যাপভিত্তিক অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া

হোয়াটসঅ্যাপ, ইমো, স্ন্যাপচ্যাট, টিকটকের মতো অ্যাপভিত্তিক সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্মগুলোর জনপ্রিয়তাও এখন তুঙ্গে। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে অ্যাপ ভিত্তিক যোগাযোগ মাধ্যম হোয়াটসঅ্যাপ এবং ইমো অনেক জনপ্রিয়। আর ভিডিও কন্টেন্টের অ্যাপ ভিত্তিক প্লাটফর্মের মাঝে জনপ্রিয়তা রয়েছে স্ন্যাপচ্যাট এবং টিকটক -এর।

আপনার মতামত দিন

দয়া করে আপনার মতামতটি লিখুন
দয়া করে আপনার নামটি লিখুন